Business

মার্কেটিং এ সফল হবার ৮ টি পদ্ধতি

মার্কেটিং এ সফল হবার ৮ টি পদ্ধতি (যেভাবে কাজ করলে (লাভ করবে )

 আপনাদের ভিতরে অনেকে হয়তো মার্কেটিং নিয়ে পড়াশুনা করে থাকেন কিন্তু এর ভিতরে কয়জনই বা মার্কেটিং এর বিষয়ে জানেন অর্থাৎ মার্কেটিং এ কি করে সফল হওয়া যায় এই বিষয়ে কতজনই বা জানে বলেন (লাভ করবে )।

মার্কেটিং এ সফল হবার ৮ টি পদ্ধতি
মার্কেটিং এ সফল হবার ৮ টি পদ্ধতি

 

আপনি যদি মার্কেটিংয়ের সফল হওয়ার উপায় জেনে থাকেন তাহলে কিন্তু আপনারা মার্কেটিংয়ের কাজ করে খুব সহজেই সফল হয়ে যেতে পারবেন অনায়াসেই  মার্কেটিং কাজ যদি জেনে থাকেন তাহলে যে কোন ব্যবসা শুরু করেন না কেন ঠিক আছে আপনি সফল অবশ্যই হবেন কেউ আপনাকে বাধা দিতে পারবে না কেননা মার্কেটিং  ব্যবসা করার মূল মন্ত্র যত বেশি প্রচার করতে পারবেন যত বেশি মার্কেটিং করতে   পারবেন তত বেশি আপনার মুনাফা হতে থাকবে তত বেশি লাভ হতে থাকবে  ।

মার্কেটিং যদি জেনে থাকেন তাহলে আপনারা যে কোন ব্যবসা খুব সহজেই করতে পারবেন অনায়াসে । এখনকার বর্তমান যুগে অনেকে চাকরি করবার থেকে ব্যবসা করতে একটু বেশি আগ্রহী হয়ে থাকেন  নিজেদের একটি  ব্যবসা থাকবে আর সেই ব্যবসায়ীর সুনাম  সব দিকে অর্থাৎ দেশে দেশের বাইরে সকল জায়গায় সুনাম ছড়িয়ে পড়বে সেটা অনেকেই  কিন্তু আসলে স্বপ্ন দেখে থাকেন ।

প্রথমদিকে একটি ব্যবসা শুরু করার পর  এ সেই ব্যবসাটিকে চালিয়ে নেওয়া কিন্তু অনেকটা কষ্টসাধ্য ব্যাপার অনেক  কষ্ট কথা প্রথমদিকে   যেকোনো একটা প্রোডাক্ট নিয়ে যদি ব্যবসা করতে চান তাহলে সেটা প্রথমদিকে প্রচার করতে অর্থাৎ মার্কেটিং করতে একটু বেশি ঝামেলায় পড়া লাগে । কিন্তু আপনি যদি আপনাদের নিজেদের প্রোডাক্ট  অথবা  পণ্য সঠিকভাবে করে মার্কেটিং করতে পারেন তাহলে কিন্তু আপনাদের ব্যবসায় এর জন্য  অনেক ভালো হবে । আর এই যে পণ্যের প্রচার করা হয়  যে জিনিসটা  অর্থাৎ যে প্রোডাক্ট সম্পর্কে মানুষেরা জানেনা সে প্রোডাক্ট আছে মানুষের কাছে নানান ভাবে যে জানানোর কৌশল অবলম্বন করা হয় এইটা কি মূলত মার্কেটিং বলা হয়ে থাকে । মার্কেটিং হল ব্যবসার ধরন কিংবা বিবরণ প্রচার করা  ।  নিজেদের প্রোডাক্ট কিংবা পণ্যকে সকলের সামনে তুলে ধরা সকলকে জানানো এটাই হচ্ছে মূলত মার্কেটিং ।

তাই এই মার্কেটিং যাকে যে যত ভালো করে প্রচার করতে পারবে মানুষের কাছে তুলে  ধরতে  পারবে তার প্রোডাক্ট ততোই বিক্রি হতে থাকবে বেশি বিক্রি হতে থাকবে  যত মানুষ জানবে তো মানুষই  আর আপনাদের ব্যবসা  যে প্রোডাক্ট আছে সে-গুলো  বিক্রি হয়ে যাবে । সেল যত বৃদ্ধি পাবে  ততোই  আপনাদের  জন্য  ভালো ।  আর মার্কেটিং এ সফল করার জন্য কিন্তু ব্যবসায়ের সফলতা কিন্তু অনেকেই অংশে নির্ভর করে থাকে মূলত । আর মার্কেটিং এ সফল হতে হলে আপনাদেরকে কিছু পদ্ধতি বা উপায় বা টেকনিক যাই বলেন না কেন সেগুলো কে অবলম্বন করতে হবে তা না হলে হবে না ।

আর তাই আজকে এই আর্টিকেলটি আপনাদের জন্য যারা মার্কেটিং শিখতে চাচ্ছেন মার্কেটিংয়ের কাজ করে আপনাদের নিজেদের ব্যবসাকে সকলের সামনে তুলে ধরতে চাচ্ছেন এবং নিজেদের সকলের সামনে তুলে ধরে বেশি বেশি সেল করতে চাচ্ছেন,  মানে মার্কেটিং করে কি করে সফল হবেন সে সকল বিষয় নিয়ে আজকের এই আর্টিকেলটি  ।

আজকে  আপনাদের অনেক কাজে আসবে  এই লেখাটি , তাই আজকের এই আর্টিকেলটি সম্পূর্ণ মনোযোগ দিয়ে পড়েন আজকের এই আর্টিকেলে,  আমরা মার্কেটিং এ সফল হওয়ার উপায় মার্কেটিং কি করে সফল হওয়া যায় মার্কেটিং এ সফল হওয়ার পদ্ধতি কি করলে সফল হতে পারবেন সেই সকল বিষয় নিয়ে আজকের এই আর্টিকেলে আলোচনা করব আপনাদের সঙ্গে ।

মার্কেটিং সফল হবারপদ্ধতি(লাভ করবে )

 

ল্যাটিন শব্দ marketus   হতে এই মার্কেট শব্দটা এসে গিয়েছে ।  আর এই মার্কেট শব্দটি এসেছে মূলত মার্কেটিং ।   আসলে মার্কেট থেকে মার্কেটিং এর উৎপত্তি হয়েছে  যে প্রক্রিয়া এর মাধ্যমে গ্রাহক বা কাস্টমারদের কাছে  প্রডাক্ট কিংবা একটা পণ্য সম্পর্কে নতুন নতুন যে সকল কাস্টমার আসে  তাদের কাছে একটা পরিচিত পায় সেটা কি মূলত মার্কেটিং বলা হয়ে থাকে ।

তবে এমন এমন লোক আছে যারা শুধু  মারকেটিং বলতে বোঝেন যে এটা শুধু প্রচার করায় মার্কেটিং শুধু  প্রচার করা এটা বুঝে থাকেন তারা । অবশ্য তাঁদের এই ধারণাটা কিন্তু একেবারেই ঠিক নয় এটা একেবারেই ভুল । মার্কেটিং এর জনপ্রিয় একটি টার্ম হচ্ছে 4 Ps। অর্থাৎ –

  •  Product – পণ্য   
  • Price – মূল্য 
  •  Place – স্থান
  •  Promotion – প্রচার

 

আজকে কিন্তু আমরা আপনাদের সাথে মার্কেটিং নিয়ে কথা বলবো না বরং কথা বলব আপনাদের সাথে যে How to be successful in marketing  অর্থাৎ মার্কেটিং এ কি করে সফল হবে সেই বিষয় নিয়ে আপনাদের সাথে কথা বলবো আজকে এই লেখাটির ভিতর । 

 

সঠিকভাবে প্রচার করা

মার্কেটিং যদি সফল হতে চান তাহলে আপনাদেরকে প্রথমে যে কাজটি করতে হবে সে কাজটি হচ্ছে সঠিক ভাবে আপনাদের কে আপনাদের প্রোডাক্ট কিংবা কোন সেবা দিয়ে থাকেন তাহলে সেটার প্রচার ভালোভাবে আপনাদেরকে করতে হবে ।

অনেক সময় দেখা গিয়ে থাকে যে অনেক কোম্পানি রয়েছে যারা নিজেদের প্রোডাক্ট বা কিংবা নিজেদের  যে সেবা থাকে সেটা মানুষদের কাছে  সঠিকভাবে প্রচার করতে পারতেছেন না ।তাই পণ্যের গুণাগুণ , পণ্যের গুণাগুণ  অর্থাৎ প্রোডাক্টের গুনাগুন সুবিধা অসুবিধা এই সকল বিষয়গুলো মানুষদের কাছে ভালোভাবে কথা সঠিকভাবে আপনাদের তুলে ধরতে হবে ।

কারণ হচ্ছে গেরা যদি বুঝতে না পারেন যে আপনার কি ধরনের প্রোডাক্ট নিয়ে কাজ করতেছেন মার্কেটে আর তার সাথে পণ্যের গুণাগুণ প্রোডাক্ট এর মান ভাল দিক পর্ন এর খারাপ দিক এই সকল বিষয়গুলো যদি গ্রাহকরা যদি জানতে না পারে তাহলে কিন্তু কখনোই তারা করে করতে আগ্রহী হবেই না   আপনি যখন একটি প্রোডাক্ট কিনতে যান তখন কিন্তু সেটার সম্পর্কে জেনে তার পরে কিনতে চান না জেনে কিন্তু কোন প্রোডাক্ট আপনারা কেনেন না ।  তাহলে কেন অন্যরা কেন কোন প্রোডাক্ট সম্পর্কে না জেনে কিনবে বলুন তাই প্রোডাক্ট এর সব তথ্য মানুষদের কাছে তুলে ধরতে হবে ।

আপনি যখন একটি মোবাইল কিনবেন তখন কিন্তু আপনি মোবাইলের অনেকগুলো রিভিউ পারেন অনলাইনে বিভিন্ন  ওয়েবসাইটে কিংবা ইউটিউব চ্যানেলে সেই মোবাইলের রিভিউ দেখে তারপরে কিনেন তারাও কিন্তু ইউটিউব অথবা ওয়েবসাইটের মাধ্যমে প্রচার করে মানুষদের জানাই এই  মোবাইলটা কি কি ফিচার রয়েছে সেগুলো সম্পর্কে আর তার পর সে গুলো দেখি কিন্তু  আপনি সেটা কিনতে যাবেন ।

আর এখানেও  ঠিক সেটাই কোন প্রোডাক্ট নিয়ে কাজ করতে হলে সেটা মানুষদের কাছে সবার আগে তুলে ধরতে হবে সকল তথ্য জানাতে হবে তারপরে মানুষেরা সেটা কিনতে আগ্রহী হবেন নয়তো নয় ।  আশা করি বুঝতে পেরেছেন । আর তাই আপনাদেরকে সঠিক ভাবে প্রচার করাটা অনেক দরকারি মার্কেটে টিকে থাকতে হলে ।

 

কথা কম বলা বেশি শুনবার অভ্যাস গড়ে তোলা 

মার্কেটিং এর কাজে মূলত নিজে বেশি কথা না বলে অন্যদের কথা মনোযোগ সহকারে   শোনার অভ্যাস করাটা অনেক দরকারি । আরে এরকম করলে আপনারা খুব সহজেই গ্রাহকদের সুবিধা–অসুবিধা এই সকল বিষয়গুলো সম্পর্কে সকল বিষয় স্পষ্ট বুঝতে পারবেন । অর্থাৎ তাদের চাহিদা টাকি তারা কি চায় কি ধরনের প্রোডাক্ট চাই কি কি সুবিধা তারা যায় সেই সকল বিষয় কিন্তু আপনারা জানতে পারবেন যদি কথা কম বলে তাদের কথাটা অর্থাৎ গ্রাহকদের কথাটা বেশি শোনার অভ্যাস গড়ে তোলেন তাহলে । তারপরে তাদের বাজেট কিরকম তারা  কত টাকার ভেতরে হলে কিনতে পারবে তাদের সামর্থ্য কিরকম সেগুলো সম্পর্কে জানতে পারবেন ।

সে কি ধরনের প্রোডাক্ট চাচ্ছে  অথবা কি ধরনের সেবা চাচ্ছে তারা তারপরে তাদের প্রয়োজন টা কি তাদের কি দরকার সে সকল বিষয়গুলো সম্পর্কে কিন্তু জেনে নিতে পারবেন খুব সহজে । দরকার নেই এরকম এর কোন কথা বলে গ্রাহকদেরকে কোন প্রকারের বিরক্ত করা যাবে না  আর এটার পরিবর্তে তাদেরকে অর্থাৎ গ্রাহকদেরকে কথা বলার জন্য সুযোগ দেওয়া লাগবে । তাদের যে একটা মতামত থাকে সেই মতামত টা কে প্রকাশের সুযোগ করে দিতে হবে । আমরা কিন্তু মূলত যেখানে দেখি কথার আগ্রহ পায় সেখানেই আমরা কিন্তু বেশি আগ্রহী হয়ে থাকি সকলেই ।

তাই একজন গ্রাহক যদি দেখে থাকেন যে আপনি তাদেরকে কথা বলার সুযোগ দিচ্ছেন না তাদের মতামত সম্পর্কে আপনাদের কোন চিন্তাই নেই তারা কি বলছে সে সম্পর্কে ভাবতেছেন না তাহলে কিন্তু আপনাদের কোম্পানি কিংবা আপনাদের ব্যবসার প্রডাক্ট কিংবা সেবা সম্পর্কে আস্তে হারিয়ে ফেলবে আর যেটা আপনাদের জন্য খুব মারাত্মক একটা ক্ষতিকর প্রভাব ফেলবে , আশাকরি বুঝতে পেরেছেন ।

 

ডিজিটাল মার্কেটিং  শিখা লাগবে

বর্তমানে এখন আমাদের বাংলাদেশের করোনাভাইরাস চলতেছে 2020 সাল থেকে আমাদের দেশে মানুষ হতে করোনাভাইরাস অ্যাটাক করেছে অর্থাৎ 2020 সালের মার্চ মাস হতে  আমাদের দেশে প্রথম  করোনাভাইরাস ধরা পড়েছিল আর  আর তারপরে সেটা আস্তে আস্তে বেড়ে লাখ লাখ মানুষ মারা যাচ্ছে সারা বিশ্বে প্রতিদিন লাখ লাখ মানুষ মারা যাচ্ছে ভাইরাস আক্রান্ত হচ্ছেন অনেক মানুষ কোটির উপরে মানুষ মারা গেছে এখন পর্যন্ত বিশ্বে তাই কিন্তু এখন মানুষ ঘরে থাকতেন নিজেদের সেফটি  এর   জন্যই কিন্তু আসলে  ।

লকডাউন দিচ্ছে সরকার বাংলাদেশে .  তাই মানুষদেরকে এখন ঘরে থাকতে হয় লোকজন বাইরে বের হতে পারে না ঘরে বেশি সময় কাটাতে হয় তাদেরকে এখন  ।

আর তাই তারা যেহেতু বাহিরে যেতে পারে না তাই তারা কিন্তু এখন অনলাইন কেনাকাটায় বেশ আগ্রহী হয়ে উঠেছে দোকানে গিয়ে পছন্দ না করে কিনে তারা ঘরে বসে অনলাইনে ওয়েবসাইটগুলো আছে সেখানে গিয়ে তারা অর্ডার করে আর ডেলিভারি বয় তাদের বাসায় এসে প্রোডাক্ট ডেলিভারি করে টাকা নিয়ে চলে যায়  আর তাছাড়া ফেসবুক  অন্যান্য যে সকল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম আছে যেমন ফেসবুক টুইটার ইনস্টাগ্রাম এছাড়াও অনেক সোশ্যাল মিডিয়া সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম আছে যেগুলোর মাধ্যমে অনেকেই  এখন  অনলাইনে প্রোডাক্ট বিক্রি বা সেবা দেওয়ার কাজ করতেছেন ।

আর তাই আপনারা কিন্তু এই সুযোগটাকে কাজে লাগাতে পারেন ।আর তাই আপনারা কিন্তু ডিজিটাল মার্কেটিং ব্যবসা এর প্রচার করতে পারেন । অনলাইন ভিত্তিক ব্যবসা এর প্রচার করতে পারেন অনলাইনে ব্যবসা প্রচার করে আপনারা ভাল রেসপন্স পাবেন গ্রাহকদের থেকে । মার্কেটিং এ যদি সফল হতে চান তাহলে ডিজিটাল মার্কেটিং কে অবশ্যই আপনাদের জানা লাগবে ।

বর্তমানে কিন্তু এখন ফেসবুক পেজ অথবা ইউটিউব চ্যানেল কিংবা ইনস্টাগ্রামে ছবি আপলোড করা যায় তারপর ভিডিও আপলোড করা যায় আপনারা সবাই জানেন এখানে ভিডিও ছবি সবকিছুই আপলোড করা যায় । আর আপনাদের কাজ হচ্ছে সুন্দর একটা ছবি   বানিয়ে তারপরে সেই সকল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেওয়া যাতে খুব সহজে আকৃষ্ট হয়ে যান আপনাদের প্রোডাক্ট এর সেবা এর প্রতি ।

আপনাদের ফেসবুক পেজটি কিংবা ওয়েবসাইট থাক আপনারা সেখানে প্রডাক সম্পর্কে বিস্তারিত লিখে দেবেন প্রোডাক্ট এর সকল গুনাগুন প্রোডাক্ট কি কি রয়েছে যেমন গ্যারান্টি ওয়ারেন্টি পাবেন এর সুবিধা কি কি অসুবিধা গুলো কি কি প্রোডাক্ট সম্পর্কে প্রোডাক্ট কি কি দিয়ে তৈরি কেন ব্যবহার করবেন ব্যবহার করলে কি লাভ হবে  অর্থাৎ প্রডাক সম্পর্কে যত কথা আছে অর্থাৎ প্রোডাক্ট এর সমস্ত ডিটেলস আপনারা আপনাদের ফেসবুক পেজ কিংবা ওয়েবসাইটে লিখে তারপরে  পাবলিশ করে দিবেন । যাতে করে গ্রাহকদের আপনাদের ব্যবসার প্রডাক্ট কিংবা সেবা সম্পর্কে তাদের একটা ধারণা হয়ে যায় ।

ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের সবগুলো লিস্ট আমি নিচে দিয়ে দিচ্ছি সেগুলো দেখলেই বুঝতে পারবেন ডিজিটাল মার্কেটিং এর ভিতরে কি কি কাজ আপনাদেরকে করতে হবে – 

 

  • স্যোশাল মিডিয়া মার্কেটিং
  • সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং (SEO)
  •   অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং
  • ইমেল মার্কেটিং
  • পে পার ক্লিক অ্যাডভারটাইজ
  •  কন্টেন্ট মার্কেটিং
  •  মোবাইল মার্কেটিং
  • রেফারেল মার্কেটিং
  • ফোরাম মার্কেটিং

 

 

মার্কেটিং নিয়ে প্রচুর পরিমাণে  লেখাপড়া করা লাগবে

যিনি একজন সফল মার্কেটের হয়ে থাকেন তাকে সকল দিকেই খেয়াল রাখতে হয় সকল দিকে নজর রাখতে হয় । এখানে মূলত কম্পিটিশনের ওপর সবাই কাজ করে কে কার উপরে গিয়ে তার  প্রোডাক্ট এর সেবা টা বিক্রি করতে পারবে সেই নিয়েছে বলে চিন্তা করতে থাকে ,  ধরুন আপনি একটা প্রোডাক্ট আছে এখন অন্য একজন ব্যবসায়ী এসে সে আপনার  প্রোডাক্টটা কি করে পিছনে ফেলে  তাদের প্রোডাক্ট মার্কেটে সকলের কাছে জনপ্রিয় করে তার প্রতি সকলের কাছে বিক্রি করবে সেই চিন্তায় থাকে তাই এখানে অনেক কম্পিটিশন রয়েছে  তাই এখানে কিন্তু ভয় পাওয়ার কিছুই নেই আপনাদেরকে নজর রাখতে হবে যে তারা কিভাবে কাজ করে তারা কিভাবে মার্কেটিং করতেছে তারা কি কলা কৌশল অবলম্বন করে তারা বেশি সেই সকল বিষয়ে আপনাকে এনালাইসিস করতে হবে ।

নিচের লেখা গুলো পড়ুন – 

 

সল্প মূলধন দিয়েই ১০টি লাভজনক নতুন ব্যবসার আইডিয়া

ঔষধের পাইকারী ব্যবসা করার পদ্ধতি

 ২০২১ সালের জন্য ১০টি লাভজনক বিজনেস আইডিয়া

 

আর এই সকল বিষয়ে গবেষণা করার পর আপনাদেরকে আপনাদের নিজেদের প্রোডাক্ট কিংবা সেবা সম্পর্কে অর্থাৎ আপনাদের প্রোডাক্ট কিংবা সেবা কি করে গ্রাহকদের কাছে আকর্ষণীয় ও আরো বেশি ভালো করে তোলা যায় সেই সকল বিষয় সম্পর্কে আপনাদের   চিন্তা করতে হবে  অন্য যে সকল কোম্পানি আছে যে সকল ব্যবসায়ীরা আছেন তাদের প্রোডাক্ট এর থেকে আপনাদের প্রত্যেককে আলাদা আছে আপনাদের প্রোডাক্ট প্রোডাক্ট থেকে কেন ভালো এই  সকল  বিষয়ে গ্রাহকদের সামনে তুলে ধরতে হবে । তুলে ধরার চেষ্টা করা লাগবে আপনাদের কে কেন আপনাদের প্রোডাক্টটি অন্যদের থেকে ভালো সেটা ।

 

মার্কেটিং নিয়ে বেষ্ট কয়েকটা  বইয়ের লিস্ট

  •   Principle of Marketing – Philip Kotler
  •  Ogilvy on Advertising – David Ogilvy
  •  E-commerce Get It Right! – Ian Daniel
  •  Hacking Growth – Sean Ellis
  • Building a StoryBrand – Donald Miller
  •  Launch – Jeff Walker
  • The 22 Immutable Laws of Marketing – Al Ries
  • Guerilla Marketing – Jay Conrad Levinson
  •  Blue Ocean Strategy – W. Chan Kim and Renée Mauborgne
  •  ইমোশনাল মার্কেটিং – মুনির হাসান
  •  ১০০ গ্রেট মার্কেটিং আইডিয়া – জিম ব্লাইথ

 

এইগুলো অর্থাৎ উপরে যে বইগুলো লিস্ট গুলো দিলাম এইগুলো এর বাইরে আরো অনেক মার্কেটিং নিয়ে অনেক বই মার্কেটে আছে মার্কেটিং এর উপরে আরও অনেক বই আছে  তাই আপনারা প্রতিদিন একটা নির্দিষ্ট করে রাখুন যে এই সময়টায় আপনারা বই পড়বেন । ইউটিউব ফলো করতে পারেন তারপরে বিভিন্ন ওয়েবসাইট ব্লগ ওয়েবসাইট আছে সেগুলোকে ফলো করতে পারেন ।  অর্থাৎ ইউটিউব চ্যানেল আরজে ওয়েবসাইটগুলোতে মার্কেটিং এ সফল হবার পদ্ধতি এই সকল বিষয়  সম্পর্কে  লেখা  রয়েছে সেগুলো কে আপনারা নিয়মিত পড়তে পারেন ।

 

নতুন জিনিস উৎপাদনের চেষ্টা করতে হবে

মার্কেটিং এ যদি আপনারা সফল হতে চান তাহলে আপনাদের  ভিতরে ক্রিয়েটিভিটি থাকা লাগবে । সবাই যে চিন্তা করে সে চিন্তা করলে হবে না আপনাকে আলাদা ভাবে চিন্তা করতে হবে সবাই যে কাজটা করছে না সেই কজটা খুঁজে বের করে আপনাকে সেটাই করতে হবে । কিভাবে কোন কাজটা করলে আপনাদের প্রোডাক্ট মার্কেটে অনেকদিন পর্যন্ত জনপ্রিয় করে রাখা যাবে বেশি পরিমাণে সেল আসবে কি করে নিজের  প্রডাক্টিভ সেবাটা সকলের কাছে জনপ্রিয় করে তোলা যাবে । সে সকল বিষয় নিয়ে আপনাদেরকে প্রচুর পরিমাণে চিন্তা করতে হবে ।

এই লেখাটি পড়েন –  ঔষধের পাইকারী ব্যবসা করার পদ্ধতি

গ্রাহকরা কিন্তু সবসময়  নতুনত্ব খুঁজে নিয়ে আসলো সেই সকল বিষয় সম্পর্কে  তারা  জানতে অনেক আগ্রহী হয়ে থাকেন । আসলে সময়ের সাথে  সাথে কিন্তু সকল  কিছুই পরিবর্তন  হতে থাকে এটাই পৃথিবীর নিয়ম ।তাই সময়ের সাথে সাথে যুগের তালে তালে কিন্তু আপনাদের কেউ আপনাদের প্রোডাক্টের নতুনত্ব আনা লাগবে । নতুন নতুন জিনিস আবিষ্কার করে সেগুলো বাজার এ দখল করে নিতে হবে ।  আর তার সঙ্গে সঙ্গে কিন্তু গ্রাহকদের চাহিদার যে একটা বিষয় আছে সেই বিষয়টাকে  আপনাদের খেয়াল রাখা লাগবে । মার্কেটিং এ যদি সফল হতে চান তাহলে কিন্তু আপনাদের উৎপাদন করার ক্ষমতার   চেষ্টা ঢাকা অনেকটা দরকারি ।

 

গ্রাহকদের চাহিদা সম্পর্কে  অবশ্যই জানবেন (মার্কেটিং এ সফল পদ্ধতি)

 

মার্কেটিং এ যদি কাজ করতে চান তাহলে কিন্তু আপনাদের কে সবথেকে বেশি গ্রাহকদের চাহিদা তারা কি চায় সেদিকে আপনাদেরকে বেশি পরিমাণে খেয়াল দিতে হবে নজর দিতে হবে সে দিকে  কোন ধরনের  কাস্টমার কিংবা  গ্রাহক যাই বলেন না কেন তারা কোন  প্রডাক্ট কিংবা কোন পণ্যটি সম্পর্কে আগ্রহী সেই সম্পর্কে কিন্তু আপনাদের গ্রাহকদেরকে নিয়ে আগে রিসার্চ করা লাগবে হঠাৎ গবেষণা করতে হবে গ্রাহকদেরকে নিয়ে আপনাদের ।

একটি বিশেষ বয়সের গ্রাহক যারা আছেন তাদের পছন্দ অপছন্দ, কাদের চিন্তাভাবনা তাদের আবেগ অনুভূতি তাদের ইচ্ছা এই সকল বিষয় আপনাদেরকে খেয়াল  রাখতে হবে তাহলে কিন্তু আপনার নিজের পণ্যটি সকলের কাছে জনপ্রিয় করে তুলতে পারবেন সকলের কাছে প্রচার করতে পারবেন  মানে সকল লোকদের কাছে উপস্থাপন করতে পারবেন ভালোভাবে । সকল বয়সের মানুষের চাহিদা কিন্তু এক নয় এই বিষয়টা আপনার থেকে মাথায় রাখতে হবে ।

যেমন মনে করুন 10 থেকে 20 বছর বয়সে তারা আছেন তাদের চাহিদা এক রকম থাকবে আবার এক থেকে দশ বছর যারা আছে তাদের চাহিদা এক রকম আবার যাদের বয়স 20 বছর থেকে 40 বছরের ভিতর এক রকম থাকবে আবার যাদের এর থেকেও বেশি 50 বছরের উপরে যাদের বয়স   তাদের চাহিদা কিন্তু অন্য একটা থাকবে   সকলের চাহিদা কিন্তু এক হবেনা তাই আপনাদেরকে সকল বয়সের মানুষদের কথা চিন্তা করে তারা কি ধরনের প্রোডাক্ট চায় তারা কি পণ্য কিনতে ইচ্ছুক তারা কি কি সেবা পেলেই সে পণ্যটি কিনতে আগ্রহী হবে সে সম্পর্কে আপনাদেরকে গবেষণা করতে হবে তাহলে আপনারা ব্যবসা করে সফল হতে পারবেন মার্কেটিং এ সফল হতে পারবেন আপনারা তাহলে এসকল বিষয় নিয়ে যদি ভালোভাবে রিচার্জ করতে পারেন তাহলে ।

আর এখানে একটা মজার ব্যাপার হল যে কোন একটা প্রোডাক্ট যদি কোনো গ্রাহক ব্যবহার করে ভালো সুযোগ সুবিধা পেয়ে থাকেন তাহলে কিন্তু সে সেই প্রোডাক্টটা অন্যদেরকে কিনতে বলবে আর সেখান থেকেও কিন্তু আপনি  সেল পাবেন বিক্রি হবে ততোই আপনাদের  লাভের পরিমাণ টাও কিন্তু বেশি হবে যত বেশি হবে তত বেশি টাকা এটা তো জানেনই এটা তো আর বলার কিছু নেই এটা সকলে জানে ।একটাই সর্বোচ্চ পরিমাণে চেষ্টা করবেন যে আপনাদের প্রোডাক্ট টা ভালো  যেন হয় সেদিকে খেয়াল রাখবেন ।

 

টিমের সাথে কাজ করবার মন মানসিকতা (মার্কেটিং এ সফল পদ্ধতি)

 

মার্কেটিং এ যদি কাজ করতে চান তাহলে কিন্তু আপনাদের অবশ্যই অবশ্যই   টিম অর্থাৎ এটি টিম  মিলে আপনাদেরকে  সকলকে কাজ করতে হবে ।  কারণ মার্কেটিংয়ে প্রচুর পরিমাণে কাজ থাকে  তাই এ কাজটা কিন্তু একার দ্বারা সম্ভব হবে না । সেজন্য কিন্তু একসঙ্গে মিলে একটা টিম বানিয়ে তারপরে কাজ করতে হবে ।

আর তার জন্য সেই রকমের  মন মানসিকতা থাকা লাগবে  দলের সকলের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করতে হবে সহযোগিতা করতে হবে কেউ না বুঝলে তাকে সেটা বুঝিয়ে দিতে হবে , প্রজেক্ট তৈরি করে এইসব বিষয়ে  সম্পর্কে সকলকে  মিলে কাজ করার মন মানসিকতা থাকা লাগবে ।

 

আত্মবিশ্বাসী হওয়া লাগবে (মার্কেটিং এ সফল পদ্ধতি)

 মার্কেটিং এ সফল হওয়ার আরো একটি মূলমন্ত্র হলো নিজেকে আত্মবিশ্বাসী হওয়া লাগবে  নিজেকে আত্মবিশ্বাসী করে তোলে অনেকটা জরুরি এই মার্কেটিং এর কাজে ।  যখন আপনারা কারো সাথে কথা বলবেন তখন পুরো আত্মবিশ্বাসের  সাথে আপনাদেরকে তাদের সাথে কথা বলতে হবে । নিজেদের বসের সামনে কিংবা কোন প্রেসের মিটিংয়ে আপনাদেরকে অথবা কোন সেমিনার কিংবা কোনো  গ্রাহক মানে কাস্টমারদের সাথে কথা বলবার সময় আপনাদেরকে কে বুঝানোর ক্ষমতা থাকা লাগবে যে আপনার প্রোডাক্টের সবার থেকে সেরা সব প্রোডাক্টের থেকে আপনার প্রোডাক্টটা সেরা  সেটা তাদের কে ভালোভাবে বুঝিয়ে বলতে হবে ।

আপনাদের কথায় যদি আত্মবিশ্বাস প্রকাশ পায় তাহলে কিন্তু আপনাদের সামনে যে মানুষটি থাকবেন তারা কিন্তু  অর্থাৎ তাদের উপর কিন্তু সেটার প্রভাব ফেলবে সে বুঝতে পারবে যে আপনার  পণ্যটি কিংবা আপনার প্রোডাক্ট  অথবা যদি আপনার  সেবা দিয়ে থাকেন তাহলে সেটাই অন্য সকল যারা প্রোডাক্ট বিক্রি করতে চান তাদের থেকে সেরা সেটা সে বুঝতে পারবে খুব সহজেই আর সেটা কিন্তু অনেক আগ্রহী হয়ে যাবে  আর তাই সে জন্য আপনাদেরকে কথা বলার সময় আত্মবিশ্বাসের সাথে কথা বলতে হবে মানুষদের সাথে তাহলেই হবে ।

 

আমাদের শেষ কথা

এই গুলোই ছিল আজকে আমাদের   বিষয়ে মার্কেটিং  এ সফল  হওয়ার ৮ টি উপায় । মূলত মার্কেটিং এর উপরে ব্যবসার সফলতা সফলতা সম্পূর্ণটাই নির্ভর করে থাকে । মার্কেটিং টা যত  সুন্দর আর যত বেশি আকর্ষণীয় হবে তত বেশি কিন্তু কে তা খুব তাড়াতাড়ি আপনার প্রোডাক্ট সম্পর্কে জানতে পারবে যে তাদের কাছে আপনার প্রোডাক্ট খুব তাড়াতাড়ি পৌঁছাবে সঠিকভাবে মার্কেটিং করতে পারলেই ।

তাই মার্কেটিংয়ে যদি সফল হতে চান তাহলে আমি উপরে যে নিয়ম গুলোর কথা বললাম যে আটটি নিয়ম বললাম মার্কেটিং এ সফল হওয়ার সেই বিষয়গুলো মেনে চলে আপনারা অবশ্যই সফল হবেন মার্কেটিং এ  আর এই বিষয়গুলো মাথায় রেখে কাজ শুরু করলে সফলতা অর্জন করা আসলেই সম্ভব ,  তাহলে আজকে এখানেই শেষ করছি পরে আবার অন্য কোন বিষয় নিয়ে আপনাদের সাথে আলোচনা করব আজ তাহলেই ভাল থাকুন সুস্থ থাকুন আল্লাহ হাফেজ ।  আমাদের ওয়েবসাইটের সাথে থাকুন আমাদের  ওয়েবসাইটে প্রতিদিন নতুন তথ্য পেতে প্রতিদিন আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করুন ।

তথ্য – প্রিয় ক্যারিয়ার

Related Articles

Back to top button