Health

চোখের রোগ কি কি ? What are eye diseases?

চোখের রোগ কি কি ?

 

চোখের রোগ কি কি ? What are eye diseases?

 

চোখের রোগ কি কি ? What are eye diseases? চোখের অসুস্থতা এমন সমস্যা যা একই সময়ে চোখের একাধিক অংশকে প্রভাবিত করে। শুষ্ক চোখ, কনজেক্টিভাইটিস, গ্লুকোমা, ম্যাকুলার ডিজেনারেশন, ডায়াবেটিক রেটিনাল ডিজেনারেশন, ছানি, দৃষ্টি প্রতিবন্ধকতা, ট্যারা চোখ, অলস চোখ এবং দৃষ্টিশক্তি হ্রাস চোখের কিছু সবচেয়ে প্রচলিত অসুখ।

 

 

আজকে আমরা প্রথমে চোখের রোগ সমূহ, চোখের বিভিন্ন রোগ, চোখের বিভিন্ন রোগের নাম ও তার সংশ্লিষ্ট তথ্য সম্পর্কে আপনাদেরকে  জানাব।চোখের রোগ কি কি ? What are eye diseases?

 

রোগ -দূরদৃষ্টি বা   হাইপারমেট্রোপিয়া–

হাইপারমেট্রোপিয়া হল এমন একটি অবস্থা যেখানে দৃষ্টিশক্তি ঝাপসা হয়ে যায় কিন্তু দূরের দৃষ্টিশক্তি প্রভাবিত হয় না। যেহেতু চোখের বলের ব্যাস স্বাভাবিকের চেয়ে ছোট, আইটেমের প্রতিফলন রেটিনার পিছনে পড়ে, কাছের বস্তুটিকে অস্পষ্ট করে। উলের লেন্স সহ চশমা ব্যবহার করলে এই অসুস্থতা নিরাময়ে সাহায্য করতে পারে।

একনেত্র দৃষ্টি

এক-চোখের দৃষ্টি হল এক ধরনের দৃষ্টি যাতে একই সময়ে দুটি চোখ দিয়ে বিভিন্ন বস্তুর প্রতিফলন দেখা যায়। এই পদ্ধতিটি বস্তুর আকার এবং অবস্থানের সুনির্দিষ্ট পরিমাপের জন্য অনুমতি দেয় না। ব্যাঙ, গরু, ঘোড়া এবং অন্যান্য প্রাণী উদাহরণ। অন্যান্য শিকারী পাখির ক্ষেত্রেও একই রকম দৃষ্টি দেখা যায়।

নিকটবদ্ধ দৃষ্টি বা মায়োপিয়া

কাছাকাছি দৃষ্টি, প্রায়শই মায়োপিয়া নামে পরিচিত, এমন একটি অবস্থা যেখানে দূরের দৃষ্টি ঝাপসা কিন্তু কাছের দৃষ্টি পরিষ্কার। চোখের বলের ব্যাস স্বাভাবিকের চেয়ে বড় হওয়ার সাথে সাথে বস্তুর প্রতিফলন রেটিনার সামনে পড়ে যা দূরের বস্তুকে অদৃশ্য করে তোলে। এই অসুখের চিকিৎসার জন্য অবতল লেন্স সহ চশমা ব্যবহার করা যেতে পারে।

দ্বিনেত্র দৃষ্টি

দুই চোখ একই সময়ে একই বস্তুর প্রতিফলন অনুভব করলে যা ঘটে তাকে বাইনোকুলার ভিশন বলে। এই ধরনের দৃষ্টিশক্তি দিয়ে বস্তুর সঠিক আকার ও অবস্থান নির্ধারণ করা যায়। মানুষ, বানর, বাঘ, বাজপাখি, পেঁচা এবং অন্যান্য প্রাণী উদাহরণ।

ছানি,

বৃদ্ধ বয়সে লেন্সের উপর একটি নির্দিষ্ট পর্দার উপস্থিতির ফলে লেন্স মেঘলা হয়ে গেলে ছানি দেখা দেয়। দৃষ্টি পুনরুদ্ধারের জন্য বিশেষ লেন্সগুলি অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে বসানো হয়।

গ্লুকোমা

গ্লুকোমা এমন একটি অবস্থা যেখানে চোখের গোলা পানি নিষ্কাশন করতে ব্যর্থ হয়, ফলে চোখের ভিতরে চাপ পড়ে। এই অবস্থার ফলে মানুষ অন্ধ হয়ে যায়।

রাতকানা

বিষয় সম্পর্কে তথ্য- রাতের অন্ধ তারাই যারা রাতে দেখতে অক্ষম। রেটিনায় রড কোষের সংখ্যা কম হলে এই অবস্থার বিকাশ ঘটে। রড কোষের একটি অনন্য ভিটামিন এ উপাদান রয়েছে।

পুঞ্জাক্ষী

প্রাসঙ্গিক বিষয়বস্তু – বেশিরভাগ প্রাণীরই একটি একক সোজা চোখ থাকে, তবে কনজেক্টিভাইটিস পর্যায়ে একটি প্রজাতির (মাকড়সা বাদে) একটি একক চোখ থাকে যা বেশ কয়েকটি সোজা চোখ দিয়ে গঠিত, যা শুঁয়োপোকা নামে পরিচিত।

বর্ণান্ধতা

যারা রঙ দেখতে পায় না, বিশেষ করে লাল-সবুজ এবং হলুদ-নীল, তাদের বর্ণান্ধ বলা হয়। যখন রেটিনায় কৌণিক কোষের সংখ্যা কম থাকে বা কৌণিক কোষে কোন রঙ্গক থাকে না, তখন অসুস্থতা বিকশিত হয়।

 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button